বরিশাল সদর উপজেলার ৫ নং চরমোনাই ইউনিয়নে পূর্বের জমিসংক্রান্ত বিরোধের জেরে বীর মুক্তিযোদ্ধাকে ঘর নির্মাণে বাধা দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, বরিশালের চরমোনাই ইউনিয়নের বুখাইনগর বাজার সংলগ্ন রাজধর গ্রামের খান বাড়ির বাসিন্দা বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আজাহার আলী খানের সঙ্গে ভাতিজা তুহিন খানের জমি নিয়ে বিরোধ চলছে। এ ঘটনায় তুহিন খান তার চাচাসহ পরিবারের সদস্যদের মিথ্যা অভিযোগে হয়রানি করার জন্য গত ১০ জুন বরিশাল অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন।

এদিকে বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আজাহার আলী খান “অস্বচ্ছল বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য আবাসন নির্মাণ প্রকল্পের আওতাধীন ‘বীর নিবাসের’ বরাদ্দকৃত একটি ঘর পেয়েছেন। গত (২৭ জুন) বৃহস্পতিবার নতুন ঘর নির্মাণের কাজ শুরু করার জন্য আগের পুরাতন কাঠের বসতঘরটি বিক্রি করে দিয়েছেন। যাদের কাছে বিক্রি করে দিয়েছেন তারা কাঠের বসতঘরটি খুলে নেয়ার সময় হৈ-হুল্লার ঘটনা ঘটে। এসময় আজাহার আলী খানের ভাইয়ের ছেলে তুহিন খান বসতঘরটি খুলে নিতে বাধা প্রদান করেন এবং ঘর ক্রয় করা ব্যক্তিদের মারধরসহ অকথ্য ভাষায় গালিগালাজও করেন। ঘটনাস্থলে উপস্থিত থাকা বীর মুক্তিযোদ্ধা আজাহার আলী খানসহ আফরোজা আক্তার বুনু, পারুল বেগম, ইতি আক্তার নাজনীন ও তায়বা আক্তারের উপর হামলাও চালান কতিপয় তুহিন খান।

এসময় ঘটনাস্থল থেকে জরুরী নাম্বার ৯৯৯ এ কল দিয়ে বিষয়টি কোতয়ালী মডেল থানায় অবগত করলে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেন। পরবর্তীতে স্থানীয় ৪/৫ জন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও স্থানীয় ২ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মোঃ মনোয়ার হোসেন জুয়েল বিরোধ সমাধানের জন্য উভয়পক্ষকে এলাকার গন্যমান্য লোকজন নিয়ে বসার প্রস্তাব দিলে তুহিন খান তাদেরকেও অকথ্য ভাষায় গালিগালাজসহ মারার জন্য তেড়ে আসেন এবং এই জমিতে নতুন করে বীর নিবাস নির্মাণ কাজ করতে পারবেন না বলে বারংবার হুমকি দেয়।

এবিষয়ে সরেজমিনে গিয়ে অভিযুক্ত তুহিন খানের সঙ্গে যোগাযোগ চেষ্টা করেও কোন মন্তব্য পাওয়া যায়নি। অপরদিকে, স্থানীয় ২ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মোঃ মনোয়ার হোসেন জুয়েল জানান, আমি এই এলাকার জনগণের প্রতিনিধি ও ঝামেলার কথা শুনে সেখানে গিয়ে উভয়পক্ষকে সমাধানের প্রস্তাব দেই কিন্তু তুহিন খান আমাকে গালিগালাজ করে এবং বিভিন্ন ধরনের হুমকি-ধামকি দিয়েছেন। আমি আমার সম্মানের কথা চিন্তা করে বিষয়টি বরিশাল সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে মুঠোফোনে জানাই। বীর মুক্তিযোদ্ধা আজাহার আলী খান হৃদরোগের রোগী হওয়ায় তার মেয়ে আফরোজা আক্তার বলেন, পুরাতন কাঠের বসত ঘরটি বিক্রি করায় এখন আমরা মানবেতর জীবনযাপন করতেছি।

আমার বাবা বীর নিবাসের যে ঘরটি বরাদ্দ পেয়েছেন সেই ঘরের নির্মাণ কাজে আমার চাচাতো ভাই তুহিন খান আমাদের বাধা প্রদান করছেন এবং আমার অসুস্থ পিতাকে সজোরে ধাক্কা মেরে ফেলে দিয়েছে ও মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করেছেন। বিষয়টি আমরা বরিশাল কোতয়ালী মডেল থানায় অভিযোগ দায়ের করেছি। এব্যাপারে প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছি। বরিশাল কোতয়ালী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এটিএম আরিফুল হক জানান- বিষয়টি আমি জেনেছি, অভিযোগ তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। বরিশাল সদর উপজেলা নির্বাহী মাহাবুব উল্লাহ মজুমদার জানান, এটা দুঃখজনক। বিষয়টি খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

İstifadəçi rəyləri Pin Up casino seyrək göstərilən xidmətlərin keyfiyyətini təsdiqləyir. azərbaycan pinup Qeydiyyat zamanı valyutanı seçə bilərsiniz, bundan sonra onu dəyişdirmək mümkün xeyr. pin-up Bunun üçün rəsmi internet saytına iç olub qeydiyyatdan keçməlisiniz. pin up Además, es de muy alto impacto y de una sadeed inigualable. ola bilərsiniz